গাইবান্ধায় ভুয়া পুলিশের পাশাপাশি অনৈতিক কাজেও জড়িত ছিলেন শিখা

মাসুম লুমেনমাসুম লুমেন
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৮:৩৯ PM, ১৪ জুন ২০২০

গাইবান্ধা শহরের বাসটার্মিনাল থেকে শিখা বেগম(৩২) নামে এক ভূয়া মহিলা পুলিশ সদস্যকে আটক করেছে সদর থানা পুলিশ। গতকাল শহরের বাস টার্মিনাল এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। কিন্তু গ্রেফতারের পর থেকেই নাম ঠিকানা নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করছে এই প্রতারক। সর্বশেষ তার নিজের বাড়ি রাজশাহী বলে জানান। আজ রবিবার (১৪ই জুন) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গাইবান্ধা সদর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খান মো. শাহরিয়ার।

প্রাথমিক ভাবে জানা গেছে, শিখা বেগম গাইবান্ধা সদরের দক্ষিণ ধানঘড়া শাপলা মিল এলাকার রাকিবুল বারী অপুর স্ত্রী এবং শিখা রাজশাহী জেলার রাজপাড়া থানার উত্তর পাড়া গ্রামের প্যারালাইসিস রোগী পিতা আব্দুল গফুর এবং মা আলতাফুন বেগমের মেয়ে।

ওসি শাহরিয়ার এ প্রতিবেদককে আরও জানান, শিখা বেগম দীর্ঘ দিন যাবৎ বিভিন্ন এলাকায় মহিলা পুলিশের পরিচয় দিয়ে অর্থ উপার্জন ছাড়াও অনৈতিক কাজ করে আসছিলেন। এছাড়া পুলিশ পরিচয়ে বিভিন্ন জায়গায় দোকান থেকে বাকীতে পণ্য ক্রয় করে প্রতারণা করাও তার পেশা। তার কাছে থেকে পুলিশের পোশাক উদ্ধার করা হয়েছে এবং প্রতারণা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে গাইবান্ধা কাচারী বাজার বকুলতলা ষ্টেশন রোড নিউ আল আমিন ট্রেডিং & কোং এর স্বত্ত্বাধিকারী ফিরোজ আহমেদ বলেন, গত ফেব্রুয়ারি থেকে ওই মহিলা আমার দোকানে আসেন।  এরপর নগদ এবং বাকিতে জামাসহ বিভিন্ন মহিলা কাপড় চোপড় ক্রয় করতেন। এরপর গত ২২/২৩ রোজায় দোকানে এসে একদাগে ৮ হাজার টাকার শার্ট, প্যান্টের কাপড় বাকীতে ক্রয় করে এবং বেতন বোনাস পেলে পরিশোধ করবে বলে জানান। কিন্তু ঈদ পার হয়ে গেলেও টাকা না দেয়ায় তার ফোন কখনো খোলা, কখনো বন্ধ পাওয়া যায়। এরপর থেকেই তিনি নিরুদ্দেশ ছিলেন।

এরই একপর্যায়ে গতকাল ১৩ জুন দোকান কর্মচারী শামসুল হক ভূয়া পুলিশ কথিত শিখা বেগমকে শহরের বাস টার্মিনাল এলাকায় দেখতে পেয়ে আমাকে ফোন করলে সাথে সাথেই আমি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হই। সেসময় শিখা পুলিশে চাকরী করেননা বললে উপস্থিত জনগণ পুলিশে খবর দেন।

খবর পেয়ে গাইবান্ধা সদর থানা অফিসার ইনচার্জ খান মো. শাহরিয়ার এস আই কদ্দুস এর নেতৃত্বে একটি টিম পাঠায় এবং ভূয়া পুলিশ পরিচয় দানকারী শিখা বেগমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

ফিরোজ আহমেদ বাদী হয়ে শিখা বেগমকে আসামী করে সদর থানায় একটি প্রতারণা মামলা দায়ের করেছেন।

আপনার মতামত লিখুন :